1. admin@daynikdesherkotha.com : Desher Kotha : Daynik DesherKotha
  2. arifkhanhrd74@gmail.com : desher kotha : desher kotha
অতিরিক্ত মিষ্টি খেলে কি হয়? - দৈনিক দেশেরকথা
রবিবার, ০৩ মার্চ ২০২৪, ০২:৫৬ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
বেইলি রোডসহ সব আবাসিক স্থাপনায় রেস্টুরেন্ট বন্ধ চেয়ে রিট মহিপুর মৎস্য আড়ৎ পট্টিতে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে,ফায়ার ফাইটারের মাথায় আঘাত গাইবান্ধার কাবিলের বাজার মদিনাতুল উলুম হাফিজিয়া ক্বওমী মাদ্রাসা ও এতিমখানার ওয়াজ মাহফিল অনুষ্ঠিত। বরিশাল প্রেসক্লাবের সভাপতি কাজী নাসির উদ্দিন বাবুল আর নেই মেলায় ৬০ কোটি টাকার বই বিক্রি ডিসি সম্মেলন শুরু কাল কাল থেকে প্রতি লিটার সয়াবিন তেল ১৬৩ টাকায় বিক্রি হবে বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরির মামলা, চলবে নিউইয়র্ক আদালতে সশস্ত্র  বাহিনী শান্তিরক্ষা মিশনে অবদান রেখে সুনাম বয়ে আনছে: প্রধানমন্ত্রী গাছে যুবকের ঝুলন্ত লাশ, হত্যা না আত্মহত্যা

অতিরিক্ত মিষ্টি খেলে কি হয়?

অনলাইন ডেস্ক
  • প্রকাশ শনিবার, ১৭ সেপ্টেম্বর, ২০২২

 878 বার পঠিত

মিষ্টি খাবার কার না ভালো লাগে।কেউ কম খায় বা কেউ বেশি খায়, তবে সবাই মিষ্টি খেতে চায়। এমনকি রাতের খাবারের পরে মিষ্টি খাবারটি যেন এটি বহু শতাব্দী ধরে চলে আসা ভারতীয় ঐতিহ্যের প্রতিফলন করে।

অন্যান্য দেশে মিষ্টিগুলি তেমন জনপ্রিয় নাও হতে পারে তবে ভারতে মিষ্টি তৈরি বা খাওয়ার জন্য কোনও উত্‍সবের প্রয়োজন হয় না। আমরা যদি সরাসরি বলি, মিষ্টি এবং ভারতের মানুষের মধ্যে একটি গভীর সংযোগ রয়েছে। এরকম একটি সংযোগ মিষ্টি এবং আপনার মস্তিষ্কের মধ্যে।

পার্থক্যটি হ’ল মিষ্টির সাথে মানুষের সম্পর্ক মিষ্টি হয় তবে মিষ্টির সাথে আপনার মনের সম্পর্ক খুব বিপজ্জনক। সাম্প্রতিক একটি গবেষণা অনুসারে, খাদ্য আপনার শরীরে কিছু আবেগকে উদ্দীপ্ত করে, যাতে খুব বেশি মিষ্টি খেলে হতাশার অনুভূতি বাড়ে।

ব্রিটিশ জার্নাল অফ সাইকিয়াট্রির এক সমীক্ষায় দেখা গেছে, যে সমস্ত লোকেরা বেশি প্রক্রিয়াজাত কার্বহাইড্রেট বা মিষ্টি গ্রহণ করেন, তাদের মধ্যে পাঁচ বছরের মধ্যে হতাশা বিকাশ হতে পারে। সুতরাং আসুন এই গবেষণা সম্পর্কে বিস্তারিত জানি।

১.চিনি হতাশা বাড়াতে সহায়ক

দুই রকম চিনি রয়েছে – প্রথম সরল চিনি, যা শাকসব্জী, ফল এবং বাদামে পাওয়া যায়। আরেকটি প্রসেসড চিনি, যা উচ্চ ক্যালোরি। এটি চকোলেট, পানীয় এবং অন্যান্য অনেক কিছুতে পাওয়া যায়। সাধারণ চিনি অন্যান্য খনিজ, ভিটামিন এবং ফাইবার দ্বারা পরিপূরক হয়, তাই শরীর এটি গ্রহণ করতে সময় নেয়। আপনার শরীরে প্রবেশের পরে, চিনি কার্বোহাইড্রেটকে গ্লুকোজগুলিতে ভেঙে দেয়, যা পরে কোষগুলিকে শক্তি সরবরাহ করে। তবে খুব বেশি শক্তি আস্তে আস্তে আপনাকে মিষ্টির আসক্তির দিকে নিয়ে যেতে পারে কারণ আপনি যখন কম মিষ্টি খান তখন আপনি দুর্বল বোধ করবেন যা আপনার ভিতরে মিষ্টির আকাক্সক্ষার কারণ হবে।

২.ডোপামিন রক্তে চিনির পরিমান বাড়ায়

আপনি যখন চিনি খাবেন তখন আপনার মস্তিস্কে ডোপামিনের মাত্রা বাড়তে শুরু করে। যাতে মেজাজ,উদ্বেগ এবং হতাশা অনুভূত হয়। একই সময়ে, যখন আপনি প্রচুর পরিমাণে মিষ্টি জিনিস খান, আপনার শরীর কিছু রাসায়নিক পরিবর্তন শুরু করে, যা চিনির তৃষ্ণা এবং দ্রুত বৃদ্ধি করে। আপনি যদি সেই সময়ের মধ্যে মিষ্টি খেতে না সক্ষম হন তবে আপনি সর্বদা ঘোড়া, বিরক্তিকর, উদ্বেগজনক, গুরুতর এবং হতাশাগ্রস্ত বোধ করেন। সায়েন্স রিপোর্টে প্রকাশিত এক সমীক্ষায় দেখা গেছে, চিনি খাওয়ার কারণে নারীরা সাধারণ মানসিক ব্যাধি এবং স্ট্রেস হওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে।

৩.প্রদাহ এবং স্ট্রেসের কারণগুলি: চিনি

খাওয়া আমাদের মেজাজ এবং আবেগগুলিতে দুর্দান্ত প্রভাব ফেলে। চিনি মেজাজে ব্যাঘাত ঘটাতে এবং স্ট্রেসের ঝুঁকি বাড়িয়ে তোলে, যা দেহে প্রদাহ বাড়ায়। যার হতাশার সাথে অনেক কিছু আছে। একই সময়ে, এটি ক্ষুধা হ্রাস, ঘুমের ধরণগুলিতে পরিবর্তন ঘটায় যা স্ট্রেস বাড়িয়ে তোলে এমন প্রধান কারণগুলিও।

এ জাতীয় পরিস্থিতিতে হতাশার সাথে মোকাবিলা করার জন্য আপনার ইনসুলিনের মাত্রা ঠিক রাখা খুব জরুরি। আসলে, আপনার শরীরে ইনসুলিনের ওঠানামা বিপাকের ব্যাঘাত ঘটাতে পারে, যা ওজন বাড়িয়ে তুলতে পারে এবং আপনাকে অনেক রোগের ঝুঁকিতে ফেলতে পারে। অন্য কিছু না হলে এটি আপনার চাপ বাড়িয়ে তুলবে এবং মানসিকভাবে আপনাকে বিরক্ত করতে শুরু করবে। তাই খাবারে চিনির পরিমাণ হ্রাস করুন, যতটা সম্ভব প্রক্রিয়াজাত খাবার খাওয়া এড়িয়ে চলুন।

দেশেরকথা/বাংলাদেশ

এই বিভাগের আরো খবর

ফেসবুকে আমরা

এই সাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া কপি করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।কপিরাইট @২০২২-২০২৩ দৈনিক দেশেরকথা কর্তৃক সংরক্ষিত।
প্রযুক্তি সহায়তায় Shakil IT Park