সোমবার, ০৪ জুলাই ২০২২, ০৭:৫৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
সিরাজগঞ্জের জনপ্রিয় দৈনিক ‘যুগের কথা’ পত্রিকার ১৩তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন গোপালপুর ও মৈনট ঘাটে দ্রুত ফেরি   চালুর  দাবি এলাকাবাসীর  পাবনার ঈশ্বরদী পদ্মার চরে কলা চাষে সাফল্য: হাসি ফুটিয়েছে চাষীদের মুখে   রাজাপুরে গাঁজা সহ দুই মাদক কারবারি আটক টুং টাং শব্দে মুখরিত কামার পল্লী  গোয়াইনঘাটে বন্যা দূর্গত এলাকায় বিনামূল্যে ঔষধ বিতরণ লক্ষ্মীপুরে নতুন কমিটি পেয়ে ছাত্রদলের আনন্দ মিছিল শিক্ষক নির্যাতন ও হত্যার প্রতিবাদে জামালপুর উদীচীর প্রতিবাদী সাংস্কৃতিক সমাবেশ ঠাকুরগাঁওয়ের পীরগঞ্জে বজ্রপাতে কৃষক নিহত  পাবনায় ‘পুলিশের বন্ধু বঙ্গবন্ধু’ নামে ঐতিহাসিক স্থিরচিত্রে সৌন্দর্য বর্ধন উদ্বোধন

হবিগঞ্জে ধানের দাম না পাওয়ায় হতাশ কৃষকরা।

লিটন পাঠান
  • প্রকাশ রবিবার, ১৫ মে, ২০২২
  • ৪২ বার-পাঠিত

হবিগঞ্জ প্রতিনিধি>হবিগঞ্জ জেলায় ধানের দাম না পাওয়ায় হতাশ কৃষক চলতি বোরো মৌসুমে ধানের দাম না পাওয়া হতাশ হবিগঞ্জের কৃষকরা। মাত্র সাড়ে ৬০০ থেকে সাড়ে ৭০০ টাকা মনে ধান কিনছেন পাইকাররা। কৃষকদের দাবি- এই দামে ধান বিক্রি করে তাদের খরচই ওঠছে না কৃষকরা জানান, ধান লাগানো থেকে শুরু করে সার-ওষুধ-কিটনাশক বা কাটা পর্যন্ত প্রতি কেরে (২৮ শতকে ১ কের) কৃষকের খরচ হয়েছে ১১/১২ হাজার টাকা।

ধান উৎপাদন হয়েছে ১৫/১৭ মন। এখন তা বিক্রি হচ্ছে সাড়ে ৬০০ থেকে সাড়ে ৭০০ টাকা মন। সেই হিসেবে প্রতি কেরে কৃষককে লোকসান গুণতে হচ্ছে ১হাজর থেকে ৩ হাজার টাকা সেই সাথে পরিবারের সকলের শ্রমতো আছেই ধানের দামের এমন অবস্থায় দিশেহারা হয়ে পরেছেন হবিগঞ্জের চাষিরা।

জেলা কৃষি অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, এবছর হবিগঞ্জে বোরা ধান চাষ হয়েছে ১ লক্ষ ২০ হাজার ৫৭০ হেক্টর জমিতে। তবে, মঙ্গলবার পর্যন্ত ৬২ শতাংশ জমির ধান কর্তন করা হয়েছে।

বাকি ধান চলতি মে মাসের বেতর ঘরে তুলতে পারবেন সাধারণ কৃষক এদিকে জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রন অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায় এবার হবিগঞ্জে সরকারি ভাবে ১৬ হাজার ২০৬ মেট্রিক টন ধান ক্রয় করা হবে। যার প্রতিমন ১ হাজার ৮০ টাকা করে কিনবে সরকার তবে সরকারি ভাবে ধান ক্রয় উদ্বোধন করা হলেও এখনও পুরোদমে ধান সংগ্রহ শুরু হয়নি আগামী।

কিছু দিনের বেতরে শুরু হবে বলে জানিয়েছে জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক কর্মকর্তা তবে বাড়তি ঝামেলার কারণে সরকারের কাছে ধান বিক্রি করতে আগ্রহ নেই সাধারণ কৃষকদেরতারা বলছেন, সরকারের কাছে ধান বিক্রি করতে পুরোপুরি শুকিয়ে গোদামে নিয়ে আসতে।

পরে তার যাচাই বাচাই শেষে ধান ভালো হলে তা ক্রয় করা হয় যদি ধানে কিছুটাও চিটা থাকে সে ধান আর ক্রয় করেন না খাদ্য নিয়নন্ত্রন অধিদপ্তর। এতে উল্টো কৃষকের যাতায়াত খরছ ও শ্রমিক খরছও নিজের ঘারে পরছে লাখাইয়ের বুল্লা গ্রামের কৃষক মো. শরিফ উদ্দিন বলেন, আমি প্রায় ২০ কের জমিতে ধান চাষ করেছি। কিন্তু ধানের দাম মাত্র ৬শ থেকে ৭শ টাকা।

বর্তমানে একজন দিনমজুরের বেতন দিতে হয় প্রতি দিন ৫ থেকে ৬শ টাকা।ধানের দাম আর আমাদের খরছের টাকা মিলে কোন ভাবেই আমাদের পুষিয়ে উটতে পারছি না। যদি ধানের দাম ১ হাজার থেকে ১২শ টাকা মনে ধান বিক্রি করতে পারি তাহলে কিছুটা লাভ হবে তিনি বলেন, আমরা সরকারের কাছে ধান বিক্রি করলেও লাভবান হতে পারবো না।

কারণ সরকার ধান কিনবে ১ হাজার ৮০ টাকায় তাও আবার ধান গোদামে নিজ খরছে নিয়ে দিয়ে আসতে হয়। আর সরকার এই ধান বিভিন্ন পরিক্ষা করে ভালো হলে তার পর রাখে। ধানে অল্প চিটা থাকলে তা তারা রাখেন না। তাহলে সেই ধান আবার আমরা বাড়িতে ফিরত নিয়ে আসতে হয় যার ফলে গোদামে নিতে যে খরছ সেটাও নিজের ঘারেই পরে।

তিনি আরও বলেন আমরা পাইকারের কাছে ধান বিক্রি করি তাহলে পাইকাররা জমি থেকে মাড়াই দেয়ার পর যে ধান বের হয় সেটাই ক্রয় করে। সেখানে চিটা থাকলেও তা কোন সমস্য হয় না আমরা গ্রামের মধ্যে ধান শুকাই সেখানে কিছুটা চিটা থাকবেই।

যে কারণে আমরা সরকারের কাছে ধান বিক্রি করতে রাজি হই না। এতে আমাদের অনেক পরিশ্রমও কম হয় খরছও কম হয়। ধানের দাম বৃদ্ধি করতে সরকারের কাছে দাবি জানিয়েছেন তিনিপূর্ব বুল্লা গ্রামের কৃষক জাহির উদ্দিন বলেন, আমরা প্রায় ২০ কের জমিতে ধান চাষ করেছি এতে আমার প্রতি কেরে ১১ থেকে ১২ হাজার টাকা খরছ হয়েছে। খরছের অনুপাতে আমার ভালো ফসল হয়নি অন্য বছর থেকে এবার প্রতি কেরে ৫/৭ মন ধান কম হয়েছে।

তিনি বলেন, ব্রি ২৮ জাতের ধানওতো অনেক নষ্ট হয়েছে যা অকাল্পনিয়। এছাড়া এবার ধানের দামও কম। আমার যে ধান ফলন হয়েছে তা ৮শ টাকা মন এমনিতেই খরছ হয়েছে। আমি একটা হিসাব করে দেখেছি প্রতি কেরে প্রায় ৫ হাজার টাকা করে লোকশান হবে। এবার যদি ধানের দাম ১ হাজার টাকা থাকতো তাহলে কিছুটা লাভবান হতে পারতাম মিয়া ধন মিয়া নামের আরও এক কৃষক বলেন, আমি ১০ কের জমিতে ধান করেছি এবার ধানের ভালো ফলন হয়নি। অনেক ধান নষ্ঠ হয়েগেছে।

যে জমিতে ধান হওয়ার কথা কের প্রতি ১৭ মন সেখানে হয়েছে ১০ মন। এর মধ্যে ধানের দামও কম আমি কিস্তি তুলে জমিতে ধান চাষ করেছিলাম এখন ঋণই কোথা থেকে পরিশোধ করবো আর নিজেই কি খাবো কিছু বুঝতে পারছি না।

কিরান দাস বলেন, এবার ধানের ফলন ভালো হয়নি ধানের মধ্যে ২/৩ জাতের সমস্যা দেখা দিয়েছিল। একটি বিজ থেকে আর অন্যটি পোকায় নষ্ঠ করেছে তিনবার চারবার ঔষধ দিয়েও কোন লাভ হয়নি।

আর ধানের দামকম হওয়াতে আমার প্রতি কেরে ৫/৭ হাজার টাকা লোকশান গুনতে হবে, এ বিষয়ে জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক অধিদপ্তরের কর্মকর্তা চাই থোয়াই প্রু মার্মা বলেন, ইতোমধ্যে ধান সংগ্রহের উদ্বোধন করা হয়েছে ঈদের ছুটির কারণে ধান সংগ্রহ করতে বিছুটা বিলম্ব হয়েছে এখন থেকে আবার পুরোদমে ধান সংগ্রহ শুরু হবে।

দেশেরকথা/বাংলাদেশ

এই বিভাগের আরো খবর

ফেসবুকে আমরা

এই সাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া কপি করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।কপিরাইট @২০২০-২০২১ দৈনিক দেশেরকথা কর্তৃক সংরক্ষিত।
Theme Customized By Theme Park BD