1. admin@daynikdesherkotha.com : Desher Kotha : Daynik DesherKotha
  2. arifkhanhrd74@gmail.com : desher kotha : desher kotha
আমার স্বামীর কিছু হলে এই দায় কে নেবে?-সংবাদ সম্মেলনে তাহমিয়া তাসনিম - দৈনিক দেশেরকথা
শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০২:৩৫ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
কিশোরগঞ্জে গ্রাম উন্নয়ন কমিটির দক্ষতা বৃদ্ধি বিষয়ক ২দিনের প্রশিক্ষণ  একুশে ফেব্রুয়ারিতে ৯ নং ক্রিকেট ক্লাব কর্তৃক আয়োজিত টুর্নামেন্টের ৮ম আসর অনুষ্ঠিত খাগড়াছড়িতে যথাযোগ্য মর্যাদায় পালিত হচ্ছে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস  আজ একুশে ফেব্রুয়ারি, মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস ভাষা আন্দোলনের শহীদদের প্রতি রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর গভীর শ্রদ্ধা খাগড়াছড়িতে পার্বত্য প্রতিমন্ত্রী কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরাকে নাগরিক সংবর্ধনা হারিয়ে যেতে বসেছে আবহমান বাংলার চিরচেনা রক্তলাল শিমুল গাছ পাবনায় ডিবির অভিযানে ২৫০০ পিচ ইয়াবাসহ গ্রেফতার ২ গলাচিপায় অমর একুশে বইমেলা-২৪ শুভ উদ্বোধন ও আলোচনা সভা। জার্মানির মিউনিখ সম্মেলন শেষে দেশে ফিরেছেন শেখ হাসিনা

আমার স্বামীর কিছু হলে এই দায় কে নেবে?-সংবাদ সম্মেলনে তাহমিয়া তাসনিম

ইমরান হাসান
  • প্রকাশ শনিবার, ২ জুলাই, ২০২২
desherkotha

 91 বার পঠিত

ত্রিশাল প্রতিনিধি>ময়মনসিংহের ত্রিশালে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের এনভায়রনমেন্টাল সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের তিন শিক্ষকের বিচার চেয়ে সংবাদ সম্মেলন করেছেন বিভাগটির প্রধান অধ্যাপক ড. আশরাফ আলী সিদ্দিকীর স্ত্রী তাহমিয়া তাসনিম।

গত শুক্রবার  ময়মনসিংহের একটি বেসরকারি হাসপাতালে এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে ড. আশরাফের স্ত্রী তাহমিয়া তাসনিম বলেন, বারবার আমার স্বামী ড. আশরাফকে ওই বিভাগের তিন শিক্ষক হেনস্থ করে আসছে। আমার স্বামী রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত নয় বলে বিশেষ ক্ষমতায় এই তিন শিক্ষক- মো. নকিবুল হাসান খান, মো. রাকিবুল হাসান এবং মো. আলিম মিয়া বারবার এমন কর্মকান্ড করেও বিচারের বাইরে থেকে যাচ্ছে। একাধিকবার দরজায় তালা লাগিয়ে বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্নের ঘটনার পরও তারা হুমকি অব্যাহত রেখেছে। আমরা নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি।

সংবাদ সম্মেলনে তিনি আরো বলেন, গত ১৩ জুন ৩ ঘণ্টার উপর তালা লাগিয়ে বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন করে ড. আশরাফকে তার কক্ষে আটকিয়ে রেখেছিলেন ওই তিন শিক্ষক। এরপর থেকেই আমার স্বামী অসুস্থ। বৃহস্পতিবার শারীরিক অবস্থা খারাপ হলে ডাক্তারের পরামর্শে আমরা নেক্সাস হাসপাতালে ভর্তি করি। আমার স্বামীর কিছু হলে এই দায় কে নেবে।

হাসপাতালে কর্তব্যরত চিকিৎসক বলেন, রোগীর হার্টের অবস্থা ভালো নয়। প্রেসার হাই। চিন্তা থেকেই এমন হচ্ছে। পেসেন্টের সাথে ঘটে যাওয়া দুর্ঘটনার পর থেকেই অবনতির দিকে যাচ্ছে বলে আমাদের মনে হচ্ছে। পরবর্তীতে আর বেশ কিছু পরীক্ষার পর রোগীর অবস্থা জানানো যাবে।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়টির উপাচার্য অধ্যাপক ড. সৌমিত্র শেখর বলেন, এটি দুঃখজনক ঘটনা। আমি ড. আশরাফ সিদ্দিকীর থেকে একটি অভিযোগ পত্র পেয়েছি। একই সঙ্গে অন্য ৩ শিক্ষকের থেকেও একটি অভিযোগপত্র পেয়েছি।

তিনি আরো বলেন, আমরা এই ঘটনাটিকে গুরুত্ব সহকারে নিয়ে একটি উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন তদন্ত কমিটি গঠন করেছি। দুই অনুষদের ডিন ও সাবেক এক ডিনকে দিয়ে গঠিত তদন্ত কমিটি দ্রæতই তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেবে। আর সেটির উপর ভিত্তি করেই বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। এভাবে চলতে থাকলে বিভাগের শিক্ষা কার্যক্রম অচল হয়ে যাবে, যেটি আমরা হতে দিতে পারি না।

এর আগে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টরের কাছে ড. আশরাফ নিরাপত্তা চাইলেও ব্যবস্থা নেয়নি প্রক্টর ও বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। প্রশাসনের নিশ্চুপ অবস্থানের কারণ দেখিয়ে ত্রিশাল মডেল থানায় গত বুধবার সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন ড. আশরাফ সিদ্দিকী।

দেশেরকথা/বাংলাদেশ

এই বিভাগের আরো খবর

ফেসবুকে আমরা

এই সাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া কপি করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।কপিরাইট @২০২২-২০২৩ দৈনিক দেশেরকথা কর্তৃক সংরক্ষিত।
প্রযুক্তি সহায়তায় Shakil IT Park