1. admin@daynikdesherkotha.com : Desher Kotha : Daynik DesherKotha
  2. arifkhanhrd74@gmail.com : desher kotha : desher kotha
কিশোরগঞ্জে ২৮ বছর বিনা পারিশ্রমিকে চাকুরী করে মানবেতর জীবন সেকেন্দার আলীর - দৈনিক দেশেরকথা
রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ০৫:১৬ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
কিশোরগঞ্জে থাই গেম ও  ভিসা   প্রতারকচক্রের ৫ সদস্য আটক  গলাচিপায় কবর ঘিরে মাজার বাণিজ্য,করা হচ্ছে জটিল ও কঠিন রোগের চিকিৎসা শাহীকে ঈদুল আজহায় ৪ লাখ টাকায় বেচতে চান মুকুল মিয়া  কিশারগঞ্জ থাই ও ভিসা প্রতারণার অভিযােগে  ৩ যুবক কারাগারে কুয়াকাটা সৈকতে পরিচ্ছন্নতা অভিযান লিফলেট বিতরণ গরমে কদর বাড়ায় নলডাঙ্গায় তালের শাঁস বিক্রিতে প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক সদরপুরে জমি ও গৃহ হস্তান্তর কার্যক্রমের শুভ উদ্বোধন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কারামুক্তি দিবস আজ স্বাস্থ্য পরীক্ষায় সিঙ্গাপুরের উদ্দেশ্যে ঢাকা ছাড়লেন ওবায়দুল কাদের আজ সারা দেশে ভূমিহীন আরও ১৮ হাজার ৫৬৬টি বাড়ি হস্তান্তর করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

কিশোরগঞ্জে ২৮ বছর বিনা পারিশ্রমিকে চাকুরী করে মানবেতর জীবন সেকেন্দার আলীর

আনোয়ার হোসেন
  • প্রকাশ বুধবার, ৬ সেপ্টেম্বর, ২০২৩

 171 বার পঠিত

নীলফামারী কিশোরগঞ্জ উপজেলার শিশু নিকেতন স্কুল এন্ড কলেজে বিনা পারিশ্রমিকে ২৮ বছর চাকরি করে অবশেষে নিয়োগ বানিজ্যের কাছে হার মেনে পরিবার পরিজন নিয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছেন পরিচ্ছন্নতাকর্মী সেকেন্দার আলী। এ ব্যাপারে তিনি রংপুর অঞ্চলের মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা উপ-পরিচালক সহ সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন দাপ্তরে অভিযোগ দায়ের করেছেন।

অভিযোগ ও সরেজমিন গিয়ে জানা গেছে সেকেন্দার আলী ১৯৯৫ সালে শিশু নিকেতন স্কুল এন্ড কলেজে ঝাড়–দার পদে নিয়োগ প্রাপ্ত হন। কিন্তু জনবল কাঠামোর মঞ্জুরী না থাকায় তিনি এমপিও ভুক্ত হন নাই। ২০২১ সালের ২৮ মার্চ ওই পদটি নাম পরিবর্তন করে পরিচ্ছন্ন কর্মী হিসেবে সমন্বয় করা হয়। সে সময়ে বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ও সদস্যগনের সম্মতিক্রমে তার পদটিও সমন্বয় করে নিয়োগ দেওয়া হয়। সে জন্য তার কাছ থেকে ৫ লক্ষ টাকা নেন বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

পরে সেকেন্দার আলীর কাছে আরো ৫ লক্ষ টাকা দাবী করেন ওই স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ আব্দুল মালেক। ভুক্তভোগী সেকেন্দার আলী বলেন, দীর্ঘদিন বিনা পারিশ্রমিকে চাকরি করে নিঃস্ব হয়ে পড়েছি। আমার পাঁচ সদস্য পরিবারের খরচ যোগাতে বর্তমানে হিমশিম খাচ্ছি। এক মেয়ে রাজশাহী বিশ^বিদ্যালয়ে ও এক ছেলে কুষ্টিয়া বিশ^বিদ্যালয়ে লেখা পড়ার খরচ জোগাতে পারছিনা। বর্তমানে আমার পরিবার খেয়ে না খেয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছি। আমার পরিবারের দূর্বিসহ দিনযাপন মানবতাকে হার মানিয়েছেন। এ অবস্থায় অধ্যক্ষের চাহিদার ৫ লক্ষ টাকা দিতে না পারায় তরিঘড়ি করে অন্য প্রার্থীকে নিয়োগ প্রদান করে অধ্যক্ষ।

অভিযোগের বিষয়ে শিশু নিকেতন স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ আব্দুল মালেকের কাছে জানতে চাইলে তিনি এ ব্যাপারে কোন মন্তব্য করতে রাজি হননি।উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা এটিএম নূরল আমীন শাহ্ অভিযোগ পাওয়ার কথা স্বীকার করে বলেন, ভুক্তভোগী আমার উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকেও অভিযোগ দিয়েছে। তারা আমাকে যে নির্দেশ করবে আমি সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নেব।

দেশেরকথা/বাংলাদেশ

এই বিভাগের আরো খবর

ফেসবুকে আমরা

এই সাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া কপি করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।কপিরাইট @২০২২-২০২৩ দৈনিক দেশেরকথা কর্তৃক সংরক্ষিত।
প্রযুক্তি সহায়তায় Shakil IT Park