1. dailydesherkotha98@gmail.com : ARIF KHAN : ARIF KHAN
  2. admin@daynikdesherkotha.com : Desher Kotha : Daynik DesherKotha
গুজব ছড়ানো চেচুয়া বিলে শাপলা ফুলের হাতছানি - দৈনিক দেশেরকথা
শনিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২১, ১১:৫৮ অপরাহ্ন
শনিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২১, ১১:৫৮ অপরাহ্ন
শিরোনামঃ
আমাদের পরিবার দীর্ঘ ৫১ বছর পরে রাজাপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের অপারেশন থিয়েটার চালু সরকারি  সিরাজউদ্দিন মেমোরিয়াল কলেজে  উদযাপিত হলো   ঈদ—ই মিলাদুন্নবী…. বানারীপাড়ার চাখারে ঈদ-ই মিলাদুননবী  উপলক্ষে বিনামূল্যে ব্লাড গ্রুপ নির্ণয় ও দাতা সংগ্রহ  কর্নেল(অবঃ) জাহিদ ফারুক শামীম এমপি’র জন্মদিনে ববি ছাত্রলীগের দোয়া মাহফিল বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক সোসাইটি আমতলী উপজেলা শাখার কমিটি গঠিত  সংখ্যালঘু বীর মুক্তিযোদ্ধার জমি দখলের অভিযোগে স্ত্রীর সংবাদ সম্মেলন জুমার দিনের ফজিলত… অভিনেত্রী শ্রীলেখাকে বিয়ের জন্য প্রস্তাব দিচ্ছে অনেকেই শিক্ষার্থীদের হাফ পাস’র ভাড়ার অনুমোদন দিতে রা‌জি নন বাস মা‌লিকরা

গুজব ছড়ানো চেচুয়া বিলে শাপলা ফুলের হাতছানি

ইমরান হাসান
  • প্রকাশ মঙ্গলবার, ৯ নভেম্বর, ২০২১
  • ২৫ বার-পাঠিত

ত্রিশাল প্রতিনিধি>এক ডুবেই সেরে যাবে যে কোন রোগ। হাজার মুশকিলের একমাত্র আসান চেচুয়া বিল। আর এই বিলের অলৌকিক’ পানি পান করলে নাকি সেরে যাবে সব রোগ। আর তাই আবাল-বৃদ্ধ-বনিতা, প্রতিবন্ধী, মানসিক রোগীসহ নানা ধরনের নারী-পুরুষের আনাগোনা ছিল এই চেচুয়া বিলে।

এমন গুজবে কান দিয়ে ২০১৮সালে অক্টোবর মাসে ময়মনসিংহের ত্রিশালে চেচুয়া বিলে প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষ ভিড় জমিয়ে ছিল। আর আজ প্রকৃতির অপরূপ রূপে সেজেছে চেচুয়া বিল। যত দূর চোখ যায় শাপলা ফুলের রক্তিম আভার হাতছানি।

বিলের পানিতে সৌন্দর্য ছড়াচ্ছে লাল শাপলা। মাঝে মাঝে সাদা ও বেগুনি শাপলার দেখাও মেলে। এর সঙ্গে ভাসমান কচু ফুলের সাদা আভা এখানকার সৌন্দর্যকে বাড়িয়ে দিয়েছে বহুগুণ। ভ্রমণ পিপাসু মানুষ এই বিলের সৌন্দর্য উপভোগ করতে এখানে ভিড় জমাচ্ছে।

জানা যায়, উপজেলা সদর থেকে এই বিলের দূরত্ব প্রায় চার কিলোমিটার। উপজেলার রামপুর ইউনিয়নের বিশাল বিল এটি। সারা দেশের মানুষ অবশ্য এ বিলকে প্রথমে চিনেছে একটি গুজবকে কেন্দ্র করে। একদিন রাত পেরিয়ে সকাল হতেই কিছু লোক দেখতে পায় সেখানে থাকা জমাটবাঁধা কচু হঠাৎ সরে গিয়ে অনেকটা জায়গা ফাঁকা হয়েছে।

এটাকে অলৌকিক ভেবে কয়েকজন এখানে গোসল করে ও এর পানি খেয়ে রোগ থেকে মুক্ত হয়েছে বলে জানান। এটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। এরপর সারা দেশের হাজার হাজার মানুষ বন্ধুর পথ পেরিয়ে কাঁদা মাখা পানিতে গোসল, গড়াগড়ি ও কাদাযুক্ত পানি সংগ্রহ করতে এখানে ভিড় করে। এমন গুজবও ছড়ানো হয়েছিল, হাজারো সমস্যার একমাত্র সমাধান এই চেচুয়া বিল।

ওই সময় উপজেলা প্রশাসন, কুসংস্কারে আচ্ছন্ন হয়ে চেচুয়া বিলের পানি, মাটি, কচুরিপানা ব্যবহার না করার জন্য প্রথমে মাইকে আহŸান জানায়। এতে কাজ না হলে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীদের লাঠিচাজের আদেশ দেওয়া হয়। পরে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়।

সৌন্দর্য রক্ষায় এরই মধ্যে স্থানীয়ভাবে এই বিলে ফুল তোলা নিষিদ্ধ করা হয়েছে। ঘুরতে আসা মানুষকে এলাকাবাসী সহযোগিতা করছে। দর্শনার্থীদের নিয়মানুবর্তিতায় হয়তো এভাবেই বিলটি পর্যটন কেন্দ্র হয়ে উঠবে। চেচুয়া বিলের শাপলা ফুলের সৌন্দর্য দেখতে আসা জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী মাহমুদ-উল হাসান রাফি বলেন, চেচুয়া বিলের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য নিঃসন্দেহে মনোমুগ্ধকর। অজস্র শাপলায় ভরে গেছে চারপাশ। দেখলে মনের ভেতর অন্যরকম প্রশান্তি কাজ করে। আমাদের বিশ্ববিদ্যালয় থেকে প্রতিদিন শিক্ষার্থী, শিক্ষকেরা আসছেন। তবে এখানে পৌঁছাতে যোগাযোগ ব্যবস্থা খুব নাজুক। এ বিষয়ে প্রশাসনের সহযোগিতা কামনা করছি। প্রয়োজনীয় পৃষ্ঠপোষকতা পেলে এই বিলটি একটি পর্যটন কেন্দ্র হয়ে উঠতে পারে।’

শাপলা ফুলের সমাহার দেখতে আসা আবু রাইহান জানান, সত্যি অসাধারণ একটি জায়গা। শাপলা ফুলের সৌন্দর্য আমাকে মুগ্ধ করেছে। যোগাযোগ ব্যবস্থা ভালো হলে এবং পর্যাপ্ত প্রচার পেলে এটি দর্শনীয় স্থান হয়ে উঠবে।

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. আক্তারুজ্জামান বলেন, নতুন যোগদানের পরই শুনেছি চেচুয়া বিলের গুজব কান্ডের কথা। তবে এখানে লাল পদ্মের সমাহার যে কোন প্রকৃতিপ্রেমীকে মুগ্ধ করে। চেচুয়ার সৌন্দর্য ধরে রাখতে ও পর্যটকদের নিরবচ্ছিন্ন প্রকৃতি উপভোগের জন্য সব ধরনের সহযোগিতা ও পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।’

এই বিভাগের আরো খবর

ফেসবুকে আমরা

এই সাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া কপি করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।কপিরাইট @২০২০-২০২১ দৈনিক দেশেরকথা কর্তৃক সংরক্ষিত।
Themes customize By Theme Park BD