October 20, 2021, 7:03 pm
শিরোনামঃ
সিরিয়ায় রাস্তার পাশে পুঁতে রাখা দুটি বোমা বিস্ফোরণ:১৩ সেনার মৃত্যু বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ে ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) উদযাপন বরগুনায় ফেসবুকে পোষ্ট কমেন্ট করা নিয়ে দফায় দফায় সংঘর্ষ,আহত-৩ ৬ মাস ধরে বিকল আমতলী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের পানির লাইন হায়দার গন্জ্ঞ বাজারের বেহাল দশা,উন্নয়নের ছোঁয়া নেই এক যুগ আত্রাইয়ে  হেলথ ক্যাম্পের শুভ উদ্বোধন  খুলনায় যথাযথ ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে পবিত্র ঈদ- ই মিলাদুন্নবী পালিত কিশোরগঞ্জে গ্রামীণ দৃশ্যপটে হারিয়ে যাচ্ছে মাছ ধরা  উসৎব  চাটখিল ভাড়াটিয়া সেজে দুই বছরের শিশু চুরি পিরোজপুর অগ্রণী ব্যাংক লিমিটেড মেইন রোড শাখা কর্তৃক “প্রবাসীর ঘরে ফেরা ঋণ বিতরণ”

এক সময় ফুটবল ভালোবাসা বন্ধ করে দিয়েছিলাম : মার্টিনেজ

সাংবাদিকের নামঃ
  • আপডেট হয়েছেঃ শুক্রবার, আগস্ট ১৩, ২০২১
  • 0 পড়া হয়েছে

নিজেদের পেশাদার ক্যারিয়ারের অনেকটাই তিনি কাটিয়েছেন আর্সেনালে। ক্লাবটিতে সুযোগ তো পাননি, বরং ধারে খেলতে পাঠানো হয়েছে দ্বিতীয় স্তরের লিগেও। পরে অ্যাস্টন ভিলা ও আর্জেন্টিনার হয়ে নিজেকে প্রমাণ করেছেন ২৮ বছর বয়সী গোলরক্ষক এমিলিয়ানো মার্টিনেজ।

২৮ বছর পর আর্জেন্টিনার শিরোপা জয়ে রেখেছেন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা। অ্যাস্টন ভিলায়ও গত মৌসুমে করেছেন দুর্দান্ত পারফরম্যান্স। সম্প্রতি ফুটবল ডেইলিকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি ফিরে গেছেন নিজের দুঃসহ সেই অতীতে। জানিয়েছেন, এক সময় ফুটবলকে ভালোবাসাই বন্ধ করে দিয়েছিলেন তিনি।

মার্টিনেজ বলেছেন, ‘আমার মনে হয় খেলতে না পারার জন্য নিজেকে প্রস্তুত করা অসম্ভব। আমি সবসময় ভেবেছি আমার প্রতিভা আছে কিন্তু ক্যারিয়ারের একটা পর্যায়ে, যখন বয়স ২২, ২৩ ছিল। তখন খেলতে পারতাম না। আমি ধারে স্পেনে গিয়েছিলাম কিন্তু মাত্র ছয়টি ম্যাচ খেলেছি।

‘তখন আমি জানতাম আমাকে আর্সেনালে ফিরতে হবে। তারা আমাকে সুযোগ দেয়নি। তাই আমার আবারও লোনে যেতে হয়। ওই বছরগুলো সত্যিই অনেক কঠিন ছিল। একটা পর্যায়ে আমি ফুটবলকে ভালোবাসা বন্ধ করে দিয়েছিলাম। যেটা নিয়ে আমি খুব ভয়ে ছিলাম।’

বর্তমানে বেশ আলোচিত এই গোলরক্ষক এক সময় পার করেছেন অনেক কঠিন সময়। ধারে খেলতে যেতে হয়েছিল চ্যাম্পিয়নশিপ লিগেও। ওই সময় মার্টিনেজকে দ্বারস্থ হতে হয়েছিল মনোবিদেরও। এমনটিই জানিয়েছেন আর্জেন্টাইন এই গোলরক্ষক।

তিনি বলেন, ‘আমাকে চ্যাম্পিয়নশিপের ক্লাবে রিডিংয়ে ধারে পাঠানো হলো। তখন নিজেকে এমন একটা অবস্থানে দাঁড় করিয়েছিলাম- এটিই আমার শেষবার ধারে খেলতে যাওয়া। সেটাই মাথায় ঢুকিয়েছিলাম, তখন মনোবিদের কাছে যেতাম। সেটা আমার খারাপ সময় ও হতাশা দূর করতে কাজে দিয়েছে অনেক।’

শেয়ার করুন

আরো সংবাদ...
কপিরাইট দৈনিক দেশেরকথা ২০২০-২০২১,এই সাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া কপি করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
Developed By POS Digital
themesba-lates1749691102