1. news.desherkotha.bd@gmail.com : ARIF KHAN : ARIF KHAN
  2. arifkhanjkt74@gmail.com : daynikdesherkotha :
  3. arifkhanhrd74@gmail.com : ARIF KHAN : ARIF KHAN
রবিবার, ২৫ জুলাই ২০২১, ০৮:৩২ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
স্বরূপকাঠীতে অগ্নিকান্ডে বসতঘরসহ সর্বস্ব হারিয়ে মাথা গোজার আকুতি ঠাকুরগাঁওয়ে ক্ষতিগ্রস্ত শিক্ষার্থীদের বাসায় ছাত্রলীগের উপহার পিরোজপুরের কাউখালীতে জমি জমা বিরোধকে কেন্দ্র করে চাচাকে পিটালেন ভাতিজা রাজাপুরে চলছে ঢিলেঢালা লকডাউন, উপেক্ষিত স্বাস্থ্যবিধি খুলনা বিভাগে একদিনে করোনায় আরো ৩৩ জনের মৃত্যু নিজের গুলির আঘাতে পুলিশ কনস্টেবলের মৃত্যু আমার বঙ্গবন্ধু’ প্রতিযোগীতায় দেশ সেরা পুরস্কার পেলেন পিরোজপুরের চন্দ্রিকা মন্ডল পিরোজপুরের কাউখালীতে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে এক কিশোর নিহত অকোজো হয়ে পড়ে আছে রাণীশংকৈল হাসপাতালে জরুরি চিকিৎসা সামগ্রী শ্রীবরদীতে গৃহবধূকে ধর্ষণের অভিযোগ

রাজাপুরে গ্রামাঞ্চল থেকে বিলুপ্তির পথে বর্ষার কদম ফুল

এম খায়রুল ইসলাম পলাশ রাজাপুর(ঝালকাঠি)প্রতিনিধি
  • প্রকাশিত মঙ্গলবার, ২৯ জুন, ২০২১
  • ৫২ বার দেখেছেন

সে কথা শুনিবে না কেহ আর,নিভৃত নির্জন চারিধার। দু’জন মুখোমুখি গভীর দুঃখ-দুখী, আকাশে জল ঝরে অনিবার- রবি ঠাকুরের কবিতার মতো এভাবেই বৃষ্টিস্নাত সজীবতার রূপ নিয়ে হাজির হয় বর্ষা। রূপময় ঋতু বর্ষার যেন মেঘবতী জলের দিন। বৃষ্টির সাথে কদমের ভালোবাসা তাই খুবই নিবিড়। অথচ ক্রমান্বয়ে হারিয়ে যাচ্ছে সেই কদম ফুল। কদম ফুল সবাই পছন্দ করে।

ছোট ছোট ছেলে-মেয়েরা কদম ফুল নিয়ে খেলা করে। এ ফুল আমাদের দেশের সব এলাকায় দেখা গেলেও এর আদি নিবাস ভারতের উষ্ণ অঞ্চলে, চীন ও মালয়ে। কদম নীপ নামেও পরিচিত। এছাড়া বৃত্তপুষ্প, মেঘাগমপ্রিয়, কর্ণপূরক, মঞ্জুকেশিনী, পুলকি, সর্ষপ, ললনাপ্রিয়, সুরভি ইত্যাদি মনোহর সব নাম রয়েছে কদমের। ছোট বলের মতো দেখতে এ ফুলের ভেতরভাগে রয়েছে মাংসল পুষ্পাধার। যাতে হলুদ রঙের পাপড়িগুলো আটকে থাকে। পাপড়ি মাথায় থাকে সাদা রঙের পরাগ।

হলুদ-সাদা কদমফুল গাঢ় সবুজ পাতার ফাঁকে দেখতে সুন্দর লাগে। ফুলে ভরা কদমগাছ দেখতে অসাধারণ হলেও এর আর্থিক মূল্য খুব কম। কাঠ নরম বলে আসবাবপত্র তৈরি করা যায় না। কাঠ দিয়ে দেয়াশলাই ও কাগজ তৈরি হয়ে থাকে। শুধু সৌন্দর্য নয়, ভেষজ গুণের পাশাপাশি কদমের রয়েছে অর্থনৈতিক গুরুত্বও। কাঠ দিয়ে কাগজ, দেয়াশলাই ছাড়াও তৈরি হয়ে থাকে বাক্সপেটরা।

আর কদমের ছাল, পাতা কিংবা ফুলের রস পিপাসা নিবারণের পাশাপাশি কৃৃমি ও জ্বরনাশক এবং বলকারক। নাগরিক উঠানে সেই কদমের ঘ্রাণ এখন অনেকটাই যেন অতীত। নেই আর আগের মতো বৈভব। আষাঢ়ে বৃষ্টি তো ছুঁয়েছে বৃক্ষ।

তবে সেই রিমঝিম জলে কদমের কোমলতা যেন খুঁজে পাওয়া ভার। চোখ জুড়ানো ঘন সবুজ পাতার মাঝে হলুদ বন্ধুতায় চিরচেনা কদম গাছ এখন চোখে পড়ে কমই। তাই হয়তো বা শহরতলীজুড়ে কদমের শুভ্ররাগে হৃদয় রাঙিয়ে নেওয়ার সুযোগ নাগরিক অবসর কিংবা ব্যস্ততায় প্রায় নেই বললেই চলে। কদম্ব মানে হলো ‘যা বিরহীকে দুঃখী করে’। তাই কদমতলে বংশীও বাঁজে মরমে।

যে সুরে সবারই একটাই আবদার পথজুড়ে ছাতার মতো ছেঁয়ে থাকা কদমের বৃষ্টি ভালোবাসার গল্পটা যেন না হয়, রূপকথার কল্পকাহিনি। যান্ত্রিক সভ্যতা ও নগরায়ণের যুগে কমতে শুরু করেছে কদমগাছ। অথচ আদিকাল থেকে কদম ফুল বর্ষার প্রকৃতিকে রাঙিয়ে যাচ্ছে। কদমফুল ছাড়া বর্ষা যেন একেবারে একা, নিঃসঙ্গ। আর তাই প্রকৃতির ঐতিহ্য রক্ষায় সরকারি ও ব্যক্তি উদ্যোগে অন্যান্য গাছের পাশাপাশি কদমগাছও রোপণ করা জরুরি।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2021
WEB DEVELOPMENT BY KB-SOFTWARES