1. alaminjhalakati@gmail.com : mdalminjkt Jhalakathi : mdalminjkt Jhalakathi
  2. arifkhanjkt74@gmail.com : daynikdesherkotha :
মনিরামপুর কুড়িয়ে পাওয়া প্রাণের জুস পানে পিতা-পুত্রসহ তিন সদস্য হাসপাতালে - দৈনিক দেশের কথা
সোমবার, ১৪ জুন ২০২১, ০৫:৪৭ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
ঠাকুরগাঁওয়ে স্বাস্থ্য বিভাগকে করোনা সামগ্রী দিলো আ.লীগ পিরোজপুর জেলা ছাত্রদলের সভাপতি হাসান আল মামুন এর পিতার মৃত্যুতে সংগঠনের নেতাদের শোক পিরোজপুরের ইন্দুরকানীতে মামলার আসামী ইউপি চেয়ারম্যান মেয়াজ্জেম হেসোনকে আড়াই মাসেও গ্রেফতার না করার অভিযোগ মনিরামপুরের সবার প্রিয় কাশেম স্যার আর নেই কুষ্টিয়া প্রকাশ্য দিবালোকে হত্যার ঘটনায় পুলিশের এএসআই আটক চাটখিলে আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে প্রবাসির সম্পত্তি দখলের অভিযোগ। পিরোজপুরের স্বরূপকাঠীতে আনসার ও ভিডিপির নতুন ভবনের উদ্বোধন জবির সেমিস্টার ফাইনাল পরীক্ষা ১০ আগস্ট, ইদের আগেই হবে অ্যাসাইনমেন্ট কিশোরগঞ্জে আগ্রহ বাড়ছে প্লাস্টিকের বস্তায় আদা চাষ কুষ্টিয়ায় প্রকাশ্য দিবালোকে মা-ছেলেকে গুলি করে হত্যা

মনিরামপুর কুড়িয়ে পাওয়া প্রাণের জুস পানে পিতা-পুত্রসহ তিন সদস্য হাসপাতালে

নূরুল হক, মণিরামপুর প্রতিনিধি:
  • প্রকাশিত শুক্রবার, ৭ মে, ২০২১
  • ২৯ বার দেখেছেন
মনিরামপুর

কুড়িয়ে পাওয়া প্রাণের ম্যাঙ্গ ফ্রুটস জুস পান করে পিতা-পুত্রসহ একই পরিবারের তিন সদস্য অসুস্থ্য হয়ে পড়েছেন। শুক্রবার সকাল ১০ টার দিকে যশোরের মনিরামপুর উপজেলার জয়পুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। এদেরকে প্রথমে মনিরামপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়া হয়। সেখানে অবস্থার অবনতি হলে চিকিৎসকের পরামর্শে যশোর ২শ’৫০ শয্যা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।
এরা হলেন রফিকুল ইসলাম (৬৫) ও তার ছেলে আবু সাইদ (২৫) এবং পোতা ছেলে আশিকুর রহমান (১০)। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত এদের মধ্যে রফিকুল ইসলামের জ্ঞান ফেরেনি বলে বড় ছেলে তরিকুল ইসলাম।
তরিকুল ইসলাম জানান, ৮ বছর আগে তার বাবা সড়ক দুর্ঘটনার কবলে পড়লে বাম পা কেটে ফেলতে হয়। এরপর থেকে ঠ্যালা গাড়িতে করে ভিক্ষাবৃত্তি করেন। বৃহস্পতিবার রাত ৯ টার দিকে ফেরার পথে প্রাণের ফ্রুটস জুস পেয়ে বাড়িতে আনেন। পরদিন শুক্রবার সকালে ভাত খেয়ে ১০ টার দিকে তার বাবা রফিকুল ইসলাম , ছোট ভাই আবু সাইদ ও তার ছেলে আশিকুর রহমান ওই জুস পান করেন। ১০ মিনিট পরেই তিন জনই অচেতন হয়ে পড়লে মনিরামপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়া হয়। সেখানে অবস্থার অবনতি হওয়ায় চিকিৎসকের পরামর্শে যশোর ২শ’৫০ শয্যা হাসপাতালে নেয়া হয়। ছোট ভাই ও ছেলের জ্ঞান ফিরলেও এখনো বাবার জ্ঞান ফেরেনি।
জরুরী বিভাগের চিকিৎসক ডাঃ মোসাব্বিরুল ইসলাম রিফাত জানান, ধারনা করা হচ্ছে তারা মেয়াদোত্তীর্ণ ওই জুস পান করে। প্রাথমিকভাবে তাদের চিকিৎসা দিয়ে উন্নত চিকিসার জন্য যশোর ২শ’৫০ শয্যা হাসপাতালে পাঠানো হয়।

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2021
WEB DEVELOPMENT BY KB-SOFTWARES