1. admin@daynikdesherkotha.com : Desher Kotha : Daynik DesherKotha
  2. arifkhanhrd74@gmail.com : desher kotha : desher kotha
  3. mdtanjilsarder@gmail.com : Tanjil News : Tanjil Sarder
সেমিফাইনাল থেকে কাঁদিয়ে বিদায় নিল ব্রাজিল - দৈনিক দেশেরকথা
শনিবার, ০৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৯:২৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
বিজ্ঞান শিক্ষায় পিছিয়ে বাংলাদেশ, স্মার্ট বাংলাদেশ গড়তে বিজ্ঞান শিক্ষার দৈন্যতা বড় একটি চ্যালেঞ্জ বগুড়ায় উপনির্বাচন নিয়ে জেলা আওয়ামী লীগের ধন্যবাদ জ্ঞাপন কিশোরগঞ্জে ভিজিডি কার্ডের সঞ্চয়ের টাকা ফেরত পাচ্ছেন সুবিধাভোগীরা কোনো কারনে পাঠ্যবই পৌঁছতে দেরি হলে ওয়েবসাইট থেকে পড়াতে শিক্ষকদের পরামর্শ দিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী পুরান ঢাকার ঐতিহ্যবাহী কলেজে অফিসার্স কাউন্সিল নির্বাচন ২০২৩ সেপ্টেম্বরে ভারত সফরে যাবেন জননেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিরামপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত-২ উপ-নির্বাচন ঠাকুরগাঁওয়ে ভোটকেন্দ্রে নেই ভোটারের দেখা চাটখিলে রেড ক্রিসেন্টের উদ্যেগে শীতবস্ত্র বিতরণ ইবিতে অনুষ্ঠিত হয়েছে পিএইচডি সেমিনার

সেমিফাইনাল থেকে কাঁদিয়ে বিদায় নিল ব্রাজিল

ডেস্ক রিপোর্ট
  • প্রকাশ শনিবার, ১০ ডিসেম্বর, ২০২২

 60 বার পঠিত

কাতার বিশ্বকাপে অতিরিক্ত সময়ে গিয়ে একটি ম্যাচও হারেনি ক্রোয়েশিয়া। কাতার বিশ্বকাপে যেন একই চিত্রনাট্য লিখছে তারা।

গতবারের মতো এবারও টাইব্রেকারে জিতে সেমিফাইনালে পা রাখলো গত আসরের রানার্সআপরা। কাঁদিয়েছে হেক্সা জয়ের মিশনে আসা ব্রাজিলকে। ভাগ্য নির্ধারণের খেলায় ৪-২ ব্যবধানে জিতে টানা দ্বিতীয়বারের মতো শেষ চার নিশ্চিত করেন লুকা মদ্রিচরা।

মার্কিনিয়োসের শটটা পোস্টে লাগার সঙ্গে সঙ্গেই জার্সি দিয়ে মুখ ঢেকে ফেললেন রদ্রিগো। প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপ খেলতে এমন দুর্বিষহ রাতটা কি ভুলতে পারবেন তিনি। নিশ্চিত করে বলা যায় রাতটা নির্ঘুমে কাটবে এই ফরোয়ার্ডের। কেন নয়! টাইব্রেকারে ব্রাজিলের হয়ে প্রথম শটটি নিতে এসেছিলেন তিনি। কিন্তু জালের ঠিকানা খুঁজে পাননি। বাঁ দিকে ঝাপিয়ে পড়ে তার শট ঠেকিয়ে দেন ডমিনিক লিভাকোভিচ। পরে পেদ্রো ও কাসেমিরো গোলের দেখা পেলে ব্রাজিলের আশা কিছুটা বাড়তে। চতুর্থ শটটি পোস্টে লাগিয়ে ব্রাজিলের হেক্সা জয়ের অপেক্ষা আরো বাড়িয়ে দিলেন মার্কিনিয়োস। ২০ বছরেও ফুরোলো না সেই আক্ষেপ।

অন্যদিকে ক্রোয়েশিয়ার হয়ে চারটি শটের প্রতিটিতে গোল করেন নিকোলা ভ্লাসিচ, লাভ্রো মায়ের, লুকা মদ্রিচ ও মিসলাভ ওরসিচ। তাদের একজনের শটেও হাতের নাগাল পাননি ব্রাজিলিয়ান গোলরক্ষক আলিসন বেকার। ১৯৮৬ বিশ্বকাপের ভুত যেন তাড়া করেছিল। কেননা টাইব্রেকারে ব্রাজিলের সবশেষ হারটা সেই বিশ্বকাপেই। যেখানে কোয়ার্টার ফাইনালে ফ্রান্সের কাছে হেরেছিল সেলেসাওরা। পাঁচবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়নরা এবারও বিদায় নিল সেই কোয়ার্টার ফাইনাল থেকে। সেটাও টানা দ্বিতীয়বার।

এডুকেশন স্টেডিয়ামে নির্ধারিত ৯০ মিনিটেও যখন আলাদা করা যায়নি তখন খেলা গড়ায় অতিরিক্ত সময়। নেইমারের গোলে অবশেষে ডেডলক ভাঙে ব্রাজিল। ১০৫ মিনিটে অপ্রতিরোধ্য থাকা ক্রোয়েশিয়ার গোলরক্ষক লিভাকোভিচকে পরাস্ত করেন তিনি। লুকাস পাকেতার সঙ্গে ওয়ান-টু করার পর ডান প্রান্ত থেকে সুক্ষ্মকোণ দিয়ে বল জালে জড়ান নেইমার। এই গোলের মাধ্যমে কিংবদন্তি পেলেকে ছুলেন এই ফরোয়ার্ড। ব্রাজিলের হয়ে সর্বোচ্চ গোলদাতার তালিকায় ৭৭ গোল নিয়ে পেলের সঙ্গে শীর্ষে আছেন তিনি। কিন্তু বেশিক্ষণ এগিয়ে থাকতে পারেনি ব্রাজিল। গোলমুখে একটি মাত্র শট নিল ক্রোয়েশিয়া। আর তাতেই গোল। ওরসিচের পাস থেকে বাঁ পায়ের দুর্দান্ত শটে জাল খুঁজে নেন পেতকোভিচ। তার গোলেই সমতা ফিরিয়ে বিশ্বকাপে নিজেদের অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখে ক্রোয়াটরা।

এর আগে পুরো ৯০ মিনিট আক্রমণে পর আক্রমণে ক্রোয়েশিয়ার ডিফেন্স ও গোলরক্ষককে ব্যতিব্যস্ত করে রেখেছে ব্রাজিল। কিন্তু গোলের দেখা পায়নি। শতচেষ্টা করেও মুখ ফিরিয়ে নিতে হয়েছে নেইমার-রিচার্লিসনদের। দুর্গ রক্ষার পাশাপাশি পাল্টা আক্রমণে যায় ক্রোয়েশিয়াও। কিন্তু ব্রাজিলের ডি বক্সে সেভাবে কোনো আতঙ্ক সৃষ্টি করতে পারেনি। কাতার বিশ্বকাপের প্রথম কোয়ার্টার ফাইনালের শুরুটা হয় ম্যাড়মেড়ে। রেফারির বাঁশি বাজার পর ব্রাজিলকে চেনাই যাচ্ছিল না। ছন্দ খুঁজে পেতে সময় নেয় তিতে শিষ্যরা। তবে মিডফিল্ডে জায়গা হারাচ্ছিল ক্রোয়াটদের কাছে। তারপরও সেই দুঃসময় কাটিয়ে ওঠে সেলেসাওরা। কিন্তু কোনোভাবেই অতিক্রম করতে পারেনি ক্রোয়েশিয়া গোলরক্ষক লিভাকোভিচকে। গোলমুখে ব্রাজিলের নেওয়া ৮টি শটের সবগুলোই ঠেকিয়ে দেন তিনি।

প্রথমার্ধে মারিও পাসালিচের নেওয়া ক্রস মিলিতাওয়ের চাপে ঠিকঠাক পায়ে লাগাতে পারেননি পেরিসিচ। ২০তম মিনিটে সুযোগ পায় ব্রাজিল। বক্সে রিচার্লিসনের সঙ্গে বল দেওয়া নেওয়ার এক পর্যায়ে শট নেন তিনি। সেটি অবশ্য ঠেকিয়ে দেন ক্রোয়েশিয়া গোলরক্ষক। ৪২তম মিনিটে বক্সের খুব কাছেই ফ্রি-কিক পায় ব্রাজিল। নেইমারের নেওয়া শট ঝাপিয়ে ঠেকান ক্রোয়েশিয়া গোলরক্ষক।

৫৫ মিনিটে বাঁ প্রান্ত দিয়ে নেইমার রাইফেল ছুঁড়লেও তা জালের দেখা পায়নি। দারুণ দক্ষতায় তা ঠেকিয়ে দেন ক্রোয়েশিয়া গোলরক্ষক ডমিনিক লিভাকোভিচ। ৬৬ মিনিটে আবারও ব্রাজিলের বাধা হয়ে দাড়ান তিনি। ক্রোয়েশিয়ার ডি বক্সে লুজ বল পেয়েছিলেন লুকাস পাকেতা। তাকে আটকানোর মতো কেউ ছিল না তখন। কিন্তু লিভাকোভিচ জাল রক্ষা করতে কোনো ভুল করেননি। কর্নারের মাধ্যমে পাকেতার সেই শট ফিরিয়ে দেন তিনি।

৭৬ মিনিটে নেইমারকে বাঁ প্রান্ত দিয়ে ঢোকার সুযোগ করে দেন রিচার্লিসন। লিভাকোভিচ ঠিকই বুঝতে পেরেছিলেন নেইমারের পায়ে বল থাকা মানেই বিপদ। তাই তাকে আটকাতে নিজের সর্বস্বটা উজাড় করে দেন তিনি। নেইমারের শট পা দিয়ে ঠেকিয়ে দেন এই গোলরক্ষক। দ্বিতিয়ার্ধের যোগ করা সময়ে বাঁ পায়ে কাট করেন আন্তনি। কিন্তু তা সোজা চলে যায় লিভাকোভিচের হাতে। সেই লোকোভিচের হাতের জাদুতেই আজ সেমিফাইনালে ক্রোয়েশিয়া

দেশেরকথা/বাংলাদেশ

এই বিভাগের আরো খবর

ফেসবুকে আমরা

এই সাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া কপি করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।কপিরাইট @২০২০-২০২১ দৈনিক দেশেরকথা কর্তৃক সংরক্ষিত।
প্রযুক্তি সহায়তায় Shakil IT Park