বৃহস্পতিবার, ০৭ জুলাই ২০২২, ০৬:৪১ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
জামালপুর রেজাল্ট নিয়ে বাড়ি ফেরা হলোনা সমৃদ্ধির কিশোরগঞ্জে টুংটাং শব্দে সরগরম হয়ে উঠেছে কামারপল্লী ফের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধের কোনো পরিকল্পনা নেই ফেসবুকে প্রধানমন্ত্রীর কন্যাকে কটুক্তি করা সেই যুবক রনি রিমাণ্ডে সুন্দরগঞ্জে মাদক দ্রব্য রোধকল্পে কর্মশালা পিরোজপুরে ৬ জন সরকারী কর্মকর্তা কর্মচারীদের শুদ্ধাচার পুরস্কারের চেক তুলে দেন জেলা প্রশাসন মোহাম্মদ জাহেদুর রহমান পবিত্র ঈদুল আযহা উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রীর ঈদ উপহার ভিজিএফের চাল বিতরণ মতলব উত্তরে মহিলা যুবলীগের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে কেক কাটা র‍্যালি ও আলোচনা সভা রেওলয়েতে আউটসোর্সিংয়ে জনবল নিয়োগের প্রতিবাদে ঈশ্বরদীতে বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধন পাবনার ঈশ্বরদীতে ‘পাগলা রাজা’ বিক্রি নিয়ে দুশ্চিন্তায় রেজাউল

কুড়িগ্রামে স্ত্রী ফিরোজার চায়ের দোকান থেকে স্বামীর মরদেহ উদ্ধার

ইউনুছ
  • প্রকাশ রবিবার, ৩১ অক্টোবর, ২০২১
  • ৬৯ বার-পাঠিত


 কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি>কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরী উপজেলায় চায়ের দোকান থেকে হযরত আলী (৫৫) নামে এক ব্যাক্তির মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। চায়ের দোকানটি হযরত আলীর স্ত্রী ফিরোজা চালাতেন। হযরত আলী ছিলেন ভ্রাম্যমান ভাংড়ি ব্যবসায়ী। রোববার (৩১ অক্টোবর) সকালে নাগেশ্বরী পৌর এলাকার পয়রাডাঙ্গা দাদামোড়ের হযরত আলীর স্ত্রী ফিরোজা বেগমের চালনাকারীচা দোকান থেকে মরদেহটি উদ্ধার করা হয়।

পরে ময়নাতদন্তের জন্য কুড়িগ্রাম মর্গে পাঠিয়েছে পুলিশ। তবে হযরতের স্বজনরা বলছেন তাকে হত্যা করা হয়েছে। হযরত আলী নাগেশ্বরী উপজেলার পয়রাডাঙ্গা গ্রামের মৃত আছমত উল্লাহর ছেলে। হযরত আলীর স্বজন এবং স্থানীয়রা জানান,  হযরত আলী পেশায় ভ্রাম্যমান ভাংরী ব্যবসায়ী ছিলেন। ভ্যানগাড়ীতে গ্রামে গ্রামে ঘুরে পুরাতন জিনিসপত্র ভাংরী হিসেবে কিনে তা মহাজনের কাছে বিক্রি করেন। তার দ্বিতীয় স্ত্রী ফিরোজা বেগম বাড়ির পাশে দাদামোড়ে একটি চায়ের দোকান করেন। শনিবার সন্ধ্যায় ওই চায়ের দোকানের যান হযরত আলী।

পরে রাত দুটার দিকে স্বজনদের মোবাইল ফোনে তার মৃত্যুর কথা জানান ফিরোজা বেগম।হযরত আলীর বোনের ছেলে (ভাগিনা) সোলায়মান ও রনি  জানান, রাত দুইটায় মামী ফিরোজা বেগমের ফোন পাই। ফোনে তিনি জানান, তার মামা (হযরত) রাত ১১টায় অসুস্থ হয়ে পড়ে এবং ২টার কিছু আগে মারা যায়।

আমরা এসে দেখি চায়ের দোকানে একটি টেবিলের উপর পড়ে আছে মামার দেহ। মামার মৃত্যু আমাদের কাছে সন্দেহজনক মনে হচ্ছে।হযরত আলীর ভাইয়ের ছেলে (ভাতিজা) মতিয়ার রহমান জানান, বেশ কিছুদিন থেকে চাচীর স্থানীয় আনিছুর রহমান নামের এক লোকের সাথে অনৈতীক সম্পর্ক আছে এমন সন্দেহে চাচা ও চাচির মধ্যে ঝগড়া ঝাটি চলে আসছিলো।

এই জেরে তাকে হত্যা করা হয়ে থাকতে পারে।নাগেশ্বরী সার্কেলের সহকারি পুলিশ সুপার সুমন রেজা জানান, এখন পর্যন্ত কেউ অভিযোগ দেয়নি। অভিযোগ দিলে তা নেয়া হবে। আরলাশের সুরতহাল করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে রিপোর্ট অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে।

দেশেরকথা/বাংলাদেশ

এই বিভাগের আরো খবর

ফেসবুকে আমরা

এই সাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া কপি করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।কপিরাইট @২০২০-২০২১ দৈনিক দেশেরকথা কর্তৃক সংরক্ষিত।
Theme Customized By Theme Park BD