1. admin@daynikdesherkotha.com : Desher Kotha : Daynik DesherKotha
  2. arifkhanhrd74@gmail.com : Daynik Kotha : Daynik Kotha
  3. mdtanjilsarder@gmail.com : Tanjil News : Tanjil Sarder
বেকারত্ব দূর করতে পারে একজন উদ্যোক্তা - দৈনিক দেশেরকথা
রবিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৯:৩৮ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
সোনাইমুড়ী থানার নেতৃত্বে সাজা পরোয়ানাভূক্ত আসামী গ্রেফতার রাজাপুরে স্ত্রীকে হত্যা করে খাটের নিচে লুকিয়ে রাখলেন স্বামী প্রধানমন্ত্রীর সিদ্ধান্তকে সন্মান জানিয়ে সংবাদ সম্মেলনে করে মনোনয়ন পত্র প্রত্যাহার করলেন আ.লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী মহিউদ্দিন মহারাজ কিশোরগঞ্জে বাল্যবিবাহ প্রতিরোধ বিষয়ক ব্র্যাকের সমন্বয় সভা অনুষ্ঠিত রাণীশংকৈলে বিশ্ব নদী দিবসে র‍্যালি ও আলোচনা সভা কিশোরগঞ্জে প্রক্সি পরীক্ষার্থী আটক কিশোরগঞ্জে বিষপানে ব্যবসায়ীর আত্মহত্যা রাণীশংকৈলে দুর্গাপূজার প্রতিমার র্পূণ রূপ দিতে ব্যস্ত সময় পার করছেন মৃৎ শিল্পীরা কাঁচারাস্তা পাঁকা করনের দাবিতে দশমিনায় মানববন্ধন দ্বিতীয় বারের মতো ফাইনালে গণ বিশ্ববিদ্যালয়

বেকারত্ব দূর করতে পারে একজন উদ্যোক্তা

মোঃ আবদুল্লাহ আল-মামুন
  • প্রকাশ শুক্রবার, ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০২২

 2 বার পঠিত

বাংলাদেশ নিম্ন মধ্যম আয়ের দেশ। দেশটির জনসংখ্যা দিনদিন বেড়েই চলেছে। কিন্তু সেই পরিসরে মানুষের উপার্জন বৃদ্ধি পায় নি। এতে মানুষের আবাদি জমির পরিমাণ কমে সেখানে বসতবাড়ি গড়ে উঠেছে। এতে ফসল উৎপাদন কমে গেছে।

তবে অতিরিক্ত জনসংখ্যা কোনো দেশের জন্য হুমকি স্বরুপ নয়, বরং আশীর্বাদ। কিন্তু সেই জনসংখ্যাকে জনসম্পদে রুপান্তর করতে হয়। এই জন্য প্রয়োজন হয় কারিগরি শিক্ষার। আমাদের দেশে উচ্চ শিক্ষার জন্য অনেক পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় হয়েছে। ফলে বাংলাদেশে শিক্ষার হার বেড়েছে। বর্তমানে শিক্ষার হার ৭৪.৬৬ শতাংশ। তবুও পড়াশোনা শেষ করে অনেক শিক্ষার্থী বেকার জীবনযাপন করছে। উপর্যুক্ত কর্মক্ষেত্র নেই।

সবাই ছুটে চলছে সরকারী চাকরির পিছনে। এই জন্য তারা বছরের পর বছর প্রস্তুতি নেয়। কিন্তু এখানে চাকরি প্রার্থী অনেক, চাকরির ক্ষেত্র খুবই সীমিত। তাদের ধারণা সরকারী চাকরিতে সুযোগ সুবিধা অনেক বেশি আর দীর্ঘস্থায়ী। তাছাড়া এখানে রয়েছে চাকরির নিশ্চয়তা এবং চাকরির থেকে অবসরের পর পেনশন ভাতা পেয়ে থাকে। সমাজে প্রত্যেক মানুষের সমান অধিকার। কিন্তু সব মানুষের অর্থনৈতিক অবস্থা একই নয়। আর একটি সুষ্ঠু, সুন্দর সমাজে বেঁচে থাকার জন্য সব শ্রেণি পেশার মানুষের প্রয়োজন। সমাজে দরিদ্র মানুষ আছে বলে ধনী মানুষেরা তাদের মাধ্যমে কাজ করে নেওয়ার সুযোগ পায়। একটি দেশের সার্বিক উন্নয়নের জন্য সরকারের পাশাপাশি বেসরকারি অনেক সংস্থা অনেক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। তারা মাঠ পর্যায়ে গিয়ে কাজ করে গ্রামীণ জনপদের উন্নয়নে ভূমিকা রাখে। বেসরকারি সংস্থা শিক্ষা, স্বাস্থ্য, মানবাধিকার ইত্যাদি নিয়ে কাজ করে। 

কিন্তু বর্তমান প্রজন্মের চাহিদা অধিকাংশ সবার বিসিএস ক্যাডার। তাহলে এই বিসিএস কি দেশের সার্বিক উন্নয়নে একাই ভূমিকা রাখে? অর্থই কি সকল সুখের মূল? কিন্তু তা নয়।

মানুষের বেঁচে থাকার জন্য মৌলিক চাহিদার মধ্যে খাদ্য অন্যতম ও অত্যাবশকীয়। আর এই খাদ্যের যোগান দেয় প্রান্তিক পর্যায়ের কৃষক। একজন মানুষ সরকারী চাকরি করে যত টাকা উপার্জন করুক না কেন, সে পরোক্ষভাবে কৃষকের উপর নির্ভরশীল। তবে টাকা পয়সা শুধু একটা বিনিময়ের মাধ্যম। কিন্তু বর্তমান সমাজের শিক্ষিত মানুষ এটা বোঝার চেষ্টা করে না।সকল শ্রেণি পেশার মানুষের অবদান নিয়ে পরিচালিত হয় সমাজ। তবুও শিক্ষিত সমাজের শিক্ষিত মানুষ বিসিএস ক্যাডার হওয়ার জন্য হাড় ভাঙা পরিশ্রম করে। সেই পরিশ্রম থেকে অল্প যদি অন্য ক্ষেত্রে দিত, তাহলে খুব অল্প সময়ে স্বাবলম্বী হতে পারত। বাংলাদেশের সার্বিক উন্নয়নের জন্য প্রতি বছর অনেক বিদেশী লোক কাজ করে। এমন লোক তো আমাদের দেশে অনেক আছে। কিন্তু তাদের নেই কারিগরি দক্ষতা। ফলে আমাদের দেশে জনসম্পদ থাকলেও কারিগরি দক্ষতার অভাব বিদেশ থেকে কারিগর আনতে বাধ্য হচ্ছে।

তবে দেশের মানুষ যদি কারিগরি জ্ঞান সম্পন্ন হতো, তাহলে তারা নিজেরাই নিজেদের চাহিদা পূরণ করতে পারতো। ফলে দেশের অর্থনীতি বিদেশে না গিয়ে দেশের মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকতো। কিন্তু তারা তা না ভেবে সরকারি চাকরি ও বিসিএস ক্যাডার হওয়ার জন্য অনেক চেষ্টা করে। বেসরকারি চাকরিজীবী আছে অনেক তারা দেশের উন্নয়নে ভূমিকা রাখে। তারা মনে করে সরকারি চাকরি মানে সোনায় সোহাগা। কিন্তু বেসরকারি চাকরি করে অনেক অর্জন করা যায়।

কিন্তু শিক্ষিত হয়ে কেউ উদ্যোক্তা হতে চায় না। সুতরাং সবাইকে উদ্যোক্তা হয়ে স্বাবলম্বী হতে হবে। উদ্যোগ যেকোনো বিষয়েই হতে পারে তবে সেটি অবশ্যই মুনাফা অর্জনের উদ্দেশ্যে হতে হবে এবং সেখানে ঝুঁকি বিদ্যমান থাকবে। যেকোনো সুস্থ মস্তিষ্কের ব্যক্তিই উদ্যোক্তা পারে, আর যিনি ব্যবসায়ের উদ্যোগ গ্রহণ করেন তিনিই উদ্যোক্তা। উদ্যোক্তা হলো এমন একজন ব্যক্তি যিনি তার কর্মসংস্থানের জন্য নতুন ব্যবসায় প্রতিষ্ঠান তৈরি করার উদ্যোগ গ্রহণ করেন। একজন উদ্যোক্তা ব্যবসায়ের ঝুঁকি বহন করে এবং ব্যবসায়ের সম্পূর্ণ মুনাফা একা ভোগ করেন।

তবে একজন সফল উদ্যোক্তার কিছু গুণ থাকা দরকার। তাকে অবশ্যই যেকোনো ব্যবসা বাণিজ্যে ঝুঁকি গ্রহণ করতে হবে। কারণ ঝুঁকি ছাড়া কোনো কিছুতেই মুনাফা অর্জন করা সম্ভব না।

উদ্যোক্তাকে অবশ্যই সৎ ও অধ্যবসায়ী হতে হবে। এছাড়া দায়বদ্ধতা, সৃজনশীলতা, উদ্ভাবনী শক্তি, নমনীয়তা, স্বাধীন মনোভাব, আশাবাদী, সংকল্পতা প্রভৃতি গুণাবলি থাকবে হয়। অনেক বিষয়ে উদ্যোগ গ্রহণ করা যেতে পারে। বাড়ির আঙিনায় অনেক জায়গা খালি থাকে। সেখানে শাক সবজির চাষ করা যায়। তবে পশুপাখি পালন করা অনেক লাভজনক। এ থেকে মাংস, দুধ, ডিম উউৎপাদন করা সম্ভব। ফলে দেশের আমিষের ঘাটতি পূরণ করে বিদেশে রপ্তানি করা যেতে পারে। দুগ্ধজাত পশু হিসেবে হলেস্টাইন ফ্রিজিয়ান অনেক পরিচিত। বিশ্বের সবচেয়ে বেশি দুধ উৎপাদনকারী গাভী এবং বিশ্বের মোট উৎপাদিত দুধের প্রায় ৫০ শতাংশ হলেস্টাইন থেকেই উৎপাদিত হয়। এটাকে মূলত সিঙ্গেল পারপাস (শুধু দুধ উৎপাদন) গরু হিসাবে চিহ্নিত করা হলেও এই জাতের ষাঁড়ও বৃহৎ আকৃতির হয়ে থাকে। দৈনিক ৪০ লিটার পর্যন্ত দুধ দিয়ে থাকে এই জাতের গাভী। সুতরাং একজন উদ্যোক্তা পারে বেকারত্ব দূর করতে।

আবদুল্লাহ আল-মামুন

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়।

দেশেরকথা/বাংলাদেশ

এই বিভাগের আরো খবর

ফেসবুকে আমরা

এই সাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া কপি করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।কপিরাইট @২০২০-২০২১ দৈনিক দেশেরকথা কর্তৃক সংরক্ষিত।
প্রযুক্তি সহায়তায় Shakil IT Park