শনিবার, ১৩ অগাস্ট ২০২২, ০৬:৫০ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
হবিগঞ্জে মজুরি বৃদ্ধির দাবিতে ফুঁসে উঠেছে চা-শ্রমিকরা থেকে অনির্দিষ্ট কালের কর্মবিরতি। কটিয়াদীতে নববধূর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার ঝালকাঠিতে বঙ্গবন্ধু কাপ ফুটবল টুর্ণামেন্টের ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত হয়েছে মাধবপুরে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে যুবককে কুপিয়ে হত্যা কুয়াকাটায় বাস ড্রাইভারকে ১০ হাজার টাকা জরিমান। নিপা অপহরণ ও হত্যার চেষ্টা মামলার আসামিদের শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সুন্দরগঞ্জে ছাদ বাগান  উদ্বোধনে জেলা প্রশাসক.. সুন্দরগঞ্জে লোডশেডিং ১৩ ঘন্টা অবৈধ পল্লী চিকিৎসক প্রশিক্ষণ কেন্দ্র সিলগালা ও পরিচালক কে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা। বাকাএভর কেন্দ্রীয় কমিটি গঠন

পাবনায় পাট ভেজানোর পানি নেই

মোহাম্মদ আলী স্বপন
  • প্রকাশ সোমবার, ১৮ জুলাই, ২০২২
  • ৩৬ বার-পাঠিত

পাবনা প্রতিনিধি> সোনালী আঁশ পাট নিয়ে বিপাকে পড়েছেন পাবনার কৃষকরা। পানির অভাবে পাট জাগ দিতে পারছেন না তারা। ভরা বর্ষা মৌসুমেও বৃষ্টির দেখা নেই। অধিকাংশ খাল, বিল, ডোবা ও জলাশয়ে পানি নেই। যেটুকু পানি আছে তা পাট পচানোর জন্য যথেষ্ট নয়।

ফলে পাটচাষিরা বৃষ্টির আশায় পাট কেটে জমিতে ফেলে রেখেছেন। আবার কেউ গাড়িতে করে বিল এলাকায় নিয়ে জাগ দেওয়ার চেষ্টা করছেন। চাটমোহর উপজেলার বিলচলন ইউনিয়নের কৃষক আকতার হোসেন জানান, এ বছর তিনি ৪ বিঘা জমিতে পাটের আবাদ করেছেন।

ফলনও ভালো হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। কিন্তু পানির অভাবে পাট জাগ দিতে পারছেন না। আকতার হোসেনের মতো উপজেলার অধিকাংশ পাটচাষির একই অবস্থা। গত বছর পাটের দাম বেশি পাওয়ায় চলতি বছর পাটের আবাদে ঝুঁকে পড়েন পাবনার কৃষকরা।

পাট আবাদ নির্বিঘেœ হলেও এখন পাট কাটা ও জাগ দেওয়া নিয়ে মহা বিপদে পড়েছেন কৃষক। চাটমোহর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ এ এ মাসুমবিল্লাহ জানান, চলতি মৌসুমে উপজেলায় আট হাজার ৮৯০ হেক্টর জমিতে পাটের আবাদ হয়েছে।

ফলনও ভালো হয়েছে। তবে যে বৃষ্টি হয়েছে তা পাট পচানোর জন্য যথেষ্ট নয়। বেশ কিছুদিনের খরা আর অনাবৃষ্টির কারণে পাট চাষিরা পড়েছেন মহা দুশ্চিন্তায়।এদিকে আটঘরিয়া উপজেলায় একই অবস্থা। বিভিন্ন ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকায় জমিতেই পাট শুকিয়ে যাচ্ছে।

পাট আবাদের শুরুতে আগাম বন্যায় নিচু জমির কিছু পাট তলিয়ে নষ্ট হয়। এখন অনাবৃষ্টি আর টানা খরার কারণে পাট জাগ দেওয়ার পানি পাচ্ছেন না কৃষকেরা।উপজেলার চাঁদভা ইউনিয়নের কৃষক ইদ্রিস আলী জানান, এ বছর তিনি ৪ বিঘা জমিতে পাট আবাদ করেছেন।

ফলনও ভাল হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। কিন্তু পানির অভাবে পাট জাগ দিতে পারছেন না।রবিউল ইসলাম ৩ বিঘা, মধু মোল্লা দেড় বিঘা, রফিক ৪ বিঘা, নুরুল ইসলাম ১ বিঘা, জহুরুল,  সেলিম, রেজাউল, জামাল এর মতো উপজেলার অধিকাংশ পাট চাষির একই অবস্থা।

গত বছর পাটের দাম বেশি পাওয়ায় চলতি বছর পাটের আবাদে ঝুঁকে পড়ে এ উপজেলার কৃষকেরা।উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন ও পৌরসভা ঘুরে কৃষকদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, মাঠে পানি না থাকায় পাট গাছ মরে যাচ্ছে।

এর কারনে আগেই আমাদের পাট কাটতে হচ্ছে। গতবার আমরা এই সময়ের মধ্যে পাট কাটতাম। তবে এবার শ্রমিক সংকট। শ্রমিকের মজুরী ৬০০ থেকে ৭০০ টাকা। তার পরেও এলাকাতে শ্রমিক পাওয়া যায় না।

আটঘরিয়া উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ সজীব আল দৈনিক দেশের কথাকে জানান, চলতি  মৌসুমে এ উপজেলায় ৫ হাজার ১৬৫ হেক্টর জমিতে পাটের আবাদ হয়েছে। ফলনও ভালো হয়েছে। তবে যে বৃষ্টি হয়েছে তা পাট পচানোর জন্য যথেষ্ট নয়।

বেশ কিছুদিনের খরা আর অনাবৃষ্টির কারণে পাট চাষিরা পড়েছেন দুশ্চিন্তায়।তিনি বলেন, বিল অঞ্চলে পানি রয়েছে। কিন্তু উঁচু অঞ্চলে পানির সংকট। পর্যাপ্ত বৃষ্টি হলে এ সমস্যা দূর হবে বলে তিনি আশা করেন।

দেশেরকথা/বাংলাদেশ

এই বিভাগের আরো খবর

ফেসবুকে আমরা

এই সাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া কপি করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।কপিরাইট @২০২০-২০২১ দৈনিক দেশেরকথা কর্তৃক সংরক্ষিত।
Theme Customized By Theme Park BD