বৃহস্পতিবার, ০৭ জুলাই ২০২২, ০৭:২৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
জামালপুর রেজাল্ট নিয়ে বাড়ি ফেরা হলোনা সমৃদ্ধির কিশোরগঞ্জে টুংটাং শব্দে সরগরম হয়ে উঠেছে কামারপল্লী ফের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধের কোনো পরিকল্পনা নেই ফেসবুকে প্রধানমন্ত্রীর কন্যাকে কটুক্তি করা সেই যুবক রনি রিমাণ্ডে সুন্দরগঞ্জে মাদক দ্রব্য রোধকল্পে কর্মশালা পিরোজপুরে ৬ জন সরকারী কর্মকর্তা কর্মচারীদের শুদ্ধাচার পুরস্কারের চেক তুলে দেন জেলা প্রশাসন মোহাম্মদ জাহেদুর রহমান পবিত্র ঈদুল আযহা উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রীর ঈদ উপহার ভিজিএফের চাল বিতরণ মতলব উত্তরে মহিলা যুবলীগের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে কেক কাটা র‍্যালি ও আলোচনা সভা রেওলয়েতে আউটসোর্সিংয়ে জনবল নিয়োগের প্রতিবাদে ঈশ্বরদীতে বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধন পাবনার ঈশ্বরদীতে ‘পাগলা রাজা’ বিক্রি নিয়ে দুশ্চিন্তায় রেজাউল

কিশোরগঞ্জে হলুদ ও কালো তরমুজ চাষে চমক!

আনোয়ার হোসেন
  • প্রকাশ শনিবার, ৭ মে, ২০২২
  • ৪৬ বার-পাঠিত


কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি> নীলফামারীর কিশোরগঞ্জে সম্ভাবনার নতুন দুয়ার খুলে কৃষি বিপ্লবের অগ্রযাত্রায় যুক্ত হয়েছে হলুদ ও কালো তরমুজের চাষ।

উপজেলার বড়ভিটা ইউপির বড়ভিটা ময়দান পাড়া গ্রামের তরুণ কৃষি উদ্যোক্তা মিনহাজুল ইসলাম শুভ পরীক্ষামূলকভাবে সমতলভূমিতে এই প্রথম ওই দুই জাতের তরমুজ চাষ করে সফলতা পেয়েছেন।

এ জাতের তরমুজের গায়ের রঙ হলুদ ও কালো,ভিতরে টুক টুকে লাল।সাধারণ তরমুজের চেয়ে রসালো,সুস্বাদ ও মিষ্টি গুণ বেশি। ফলে বাজারে ভোক্তাদের কাছে চাহিদাও অনেক বেশি। সরেজমিনে দেখা যায়,মালচিং পদ্ধতিতে থরে থরে বেডের মাচায় হলুদ-কালো মিশেল করে ডগায় ডগায় দুলছে ২থেকে ৩ কেজি ওজনের অসংখ্য তরমুজ।

কালো-হলুদের বর্ণিলতায় নজর আটকে যাওয়ার মত জলছবি। এতে কৃষি উদ্যোক্তার চোখে মুখে ফুটে উঠেছে চমক লাগানোর হাসি। চাষী শুভ জানান,তিনি নোয়াখালী জেলার মাইজদি সোনাপুর গ্রামে এর চাষাবাদ দেখে এসে বগুড়া থেকে বীজ সংগ্রহ করে ৩৫ শতাংশ জমিতে ফাগুন মাসে চাষ করেন। খরচ হয় ৪০ হাজার টাকা।

যা ৬০দিনে ফলন দেয়া শুরু হয়।জেলাসহ বিভাগীয় শহরে বিক্রি হয এই তরমুজ। বাজার দর পান ৪৫থেকে ৫০ টাকা কেজি। এতে লক্ষাধিক টাকা বিক্রি করে আয় হয় ৮০হাজার টাকার মত। মালচিং পদ্ধতিতে (পলিথিনের পেপার ঢেকে)পরিচর্যা কম।

আশানুরুপ ফলন। দামও ভাল।অল্প খরচে অধিক লাভ। এখানকার মাটির গুণাগুণ,আবহাওয়া ও জলবায়ু সহনশীল হওয়ায় এ তরমুজ সারা বছর চাষে উপযোগী। প্রথম মৌসুম প্রায় শেষ পর্যাযে,আবার দ্বিতীয় পর্যাযে বাণিজ্যিক ভাবে এর চাষাবাদে প্রস্তুতি নিচ্ছেন তিনি। এমন সফলতা দেখে অন্য কৃষকরাও তরমুজ চাষে আগ্রহী হয়ে উঠেছেন।


উপজেলা কৃষি অফিসার হাবিবুর রহমান বলেন,গোল্ডেন ক্রাউন জাতের হলুদ ও কালো তরমুজ চাষ করে তরুণ কৃষি উদ্যোক্তা শুভ ভাল লাভবান হয়েছেন। কৃষি অফিসের পক্ষ থেকে উচ্চমূল্যের নতুন এ ফসল চাষে কৃষকদের পরামর্শ ও উদ্বুদ্ধ করা হচ্ছে। আগামীতে এ জাতের তরমুজ চাষ আরো বাড়বে।

দেশেরকথা/বাংলাদেশ

এই বিভাগের আরো খবর

ফেসবুকে আমরা

এই সাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া কপি করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।কপিরাইট @২০২০-২০২১ দৈনিক দেশেরকথা কর্তৃক সংরক্ষিত।
Theme Customized By Theme Park BD