1. admin@daynikdesherkotha.com : Desher Kotha : Daynik DesherKotha
  2. arifkhanhrd74@gmail.com : desher kotha : desher kotha
ঈদের ছুটিতে কেমন কাটবে বাকৃবির কর্মজীবীদের জীবন - দৈনিক দেশেরকথা
রবিবার, ১৪ জুলাই ২০২৪, ০৪:০৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
বাদুরতলা স্পোর্টিং ক্লাবের শুভ উদ্বোধন ঝালকাঠির বাসন্ডা ব্রীজটি বার্ধক্যের ভারে যেন মরন ফাঁদ সদরপুরে মৎস্য আইনে মোবাইল কোর্ট,বাধ সহ ২৭ টি চায়না দোয়ারি ধ্বংস  রায়পুরে ডাকাতিয়া নদী পরিস্কার কর্মসূচীর উদ্বোধন সদরপুরে ৪ কেজি গাঁজা সহ ব্যবসায়ী কে আটক করেছে ডি বি পুলিশ  চীনের সাথে ৭টি প্রকল্প ও ২১ একটি চুক্তিতে স্বাক্ষর করলেন প্রধানমন্ত্রী ঝালকাঠিতে মাছ ধরার ফাঁদ তৈরীতে ব্যস্ত কারিগররা। চীন সফর শেষে বুধবার দেশে ফিরবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রশ্নফাঁস:পিএসসির ৩ কর্মকর্তাসহ ১০ জন কারাগারে কোটা নিয়ে সব পক্ষের বক্তব্য শুনে ন্যায়বিচার করবে আদালত: আইনমন্ত্রী

ঈদের ছুটিতে কেমন কাটবে বাকৃবির কর্মজীবীদের জীবন

জাহিদ হাসান
  • প্রকাশ শুক্রবার, ৫ এপ্রিল, ২০২৪

 177 বার পঠিত

ঈদের বাড়ি যাবার আনন্দ শিক্ষার্থীদের মধ্যে থাকলেও ক্যাম্পাসের শিক্ষার্থীদের নিয়ে যাদের জীবন ও জীবিকা তাদের মধ্যে বেড়ে গিয়েছে উপার্জন কমে যাওয়ার শঙ্কা। বলছি রিকশা চালক, মুদি দোকানদার, হোটেল ব্যাবসায়ীদের কথা।

বাকৃবির কে আর মার্কেটে অবস্থিত মুদি দোকান “বিনিময় স্টোরের” দোকানি উমায়ের বিন আজিজ বলেন, শিক্ষার্থীরা সবাই চলে গেলে আমাদের বিক্রি অনেকাংশেই কমে যাবে। আমার দোকান থেকে ছাত্র, ছাত্রী, শিক্ষক, কর্মকর্তা, কর্মচারী সবাই কেনাকাটা করে। ক্যাম্পাসে ক্লাস-পরীক্ষা চালু থাকলে শিক্ষার্থীরা সবাই উপস্থিত থাকে এবং তাদের কাছে প্রতিদিন প্রায় গড়ে দশ হাজার টাকার মতো কেনাবেচা হয় যা আমার উপার্জনের বড় একটা অংশ। ঈদের ছুটিতে সে আয় থেকে আমি বঞ্চিত হবো।

হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী হলের ক্যান্টিনের কর্মচারী মো. হোসাইন বলেন, হলে ছাত্ররা সবাই থাকলে দৈনিক ১০০০ থেকে ১২০০ টাকার বেচাকেনা হয়। রোজার শুরু থেকে হলে ইফতারি আইটেমও বিক্রি করেছি৷ কিন্তু শিক্ষার্থীরা ধীরে ধীরে বাড়ি চলে যাওয়ায় আমার বিক্রিও কমে গেছে। ৫ তারিখ থেকে বিক্রি পুরোপুরি বন্ধ হয়ে যাবে।

এছাড়াও বাকৃবির শেষ মোড়ে অবস্থিত বিসমিল্লাহ হোটেল এন্ড বিরিয়ানী হাউজের মালিক মো. কামরুজ্জামান বলেন, আমার হোটেলের ব্যবসা সম্পূর্ণ শিক্ষার্থী নির্ভর। ১০০ জনের মধ্যে ৮০ জন কাস্টমারই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী। সাধারণ সময়ে দিনে ৩০ থেকে ৩৫ হাজার টাকা বেচাকেনা হলেও ঈদের ছুটির এই কয়দিন ৫ হাজার টাকা বেচাকেনা করতে পারবো কিনা তার কোনো নিশ্চয়তা নেই। বেচাকেনা একেবারেই কমে গেলে হোটেল বন্ধ রাখতে হবে। 

বাকৃবির কে আর মার্কেটের জয়নাল ফটোস্ট্যাটের জয়নাল আবেদীন বলেন, আমার ফটোকপির দোকানের আয়-রোজগার নির্ভরশীল বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্লাস-পরীক্ষা চলার উপর। ওই সময়েই শিক্ষার্থীরা লেকচারশীট কিনে। ঈদের ছুটিতে শিক্ষার্থীরা ক্যাম্পাসে না থাকায় আমার ব্যবসা পুরোপুরিভাবে বন্ধ থাকবে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের অটোরিকশা চালক মোমেন আকন্দের সাথে কথা বললে তিনি জানান, আপনারাই (শিক্ষার্থীরা) আমার দৈনন্দিন জীবনের উপার্জনের অন্যতম মাধ্যম। আপনারা ঈদের ছুটিতে চলে যাবার পর রিক্সা চালানো বন্ধ রাখতে হবে।

তবে ঈদের সময় বাকৃবিতে প্রচুর পরিমাণে দর্শনার্থী বেড়াতে আসায় তখন কিছু উপার্জনের আশা করছেন বলে জানান এই রিক্সাচালক।

পবিত্র ঈদুল ফিতরের আনন্দ পরিবারের সাথে ভাগাভাগি করতে ইতোমধ্যেই ক্যাম্পাস ছাড়তে শুরু করেছেন বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বাকৃবি) শিক্ষার্থীরা। প্রজ্ঞাপন মোতাবেক, বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় ঈদুল ফিতর উপলক্ষে আগামী ৫ এপ্রিল থেকে প্রায় ১৬ এপ্রিল পর্যন্ত ছুটিতে যাচ্ছে।

দেশেরকথা/বাংলাদেশ

এই বিভাগের আরো খবর

ফেসবুকে আমরা

এই সাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া কপি করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।কপিরাইট @২০২২-২০২৩ দৈনিক দেশেরকথা কর্তৃক সংরক্ষিত।
প্রযুক্তি সহায়তায় Shakil IT Park