1. admin@daynikdesherkotha.com : Desher Kotha : Daynik DesherKotha
  2. arifkhanjkt74@gamil.com : arif khanh : arif khanh
ইবির সাদ্দাম হোসেন হলে অবহেলায় জরাজীর্ণ আলোকসজ্জার বাতিগুলো - দৈনিক দেশেরকথা
রবিবার, ২১ জুলাই ২০২৪, ১১:০৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
আমার বিশ্বাস তারা ন্যায়বিচার পাবে, হতাশ হতে হবে না,জাতির উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী শিক্ষার্থীরা কোথাও আগুন কিংবা ভাঙচুর করেনি: ডিবিপ্রধান চলমান কোটা সংস্কার আন্দোলনের বিষয়ে সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উলিপুরে আলোকিত শিশু কন্ঠ পরিষদের আয়োজনে পবিত্র  আশুরা পালিত পবিত্র আশুরা উপলক্ষে বেনাপোল বন্দরে আমদানি-রপ্তানি বাণিজ্য বন্ধ ছারছীনার পীর সাহেব হুজুর আর নেই দেশের সব স্কুল-কলেজ অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা নলডাঙ্গায় ১১ অসহায় পরিবারের মাঝে চেক ও ঢেউটিন বিতরন বাদুরতলা স্পোর্টিং ক্লাবের শুভ উদ্বোধন ঝালকাঠির বাসন্ডা ব্রীজটি বার্ধক্যের ভারে যেন মরন ফাঁদ

ইবির সাদ্দাম হোসেন হলে অবহেলায় জরাজীর্ণ আলোকসজ্জার বাতিগুলো

মোঃ হাছান
  • প্রকাশ শুক্রবার, ৬ অক্টোবর, ২০২৩

 154 বার পঠিত

ইবি প্রতিনিধি>ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় সাদ্দাম হোসেন হলে আলোকসজ্জার বাতিগুলো অবহেলায় পড়ে আছে দীর্ঘদিন ধরে। আবার বীরশ্রেষ্ঠ হামিদুর রহমান মিলনায়তন থেকে জিয়া মোড় পর্যন্ত হলের সীমানা দেয়ালে নেই কোনো ল্যাম্পপোস্ট। এসব বাতিগুলোর সংস্কার নেই কয়েক বছরেও। দিনের আলোতে সৌন্দর্য ফিরে আসলেও, রাতের আঁধারে যেন সৌন্দর্য হারিয়ে মলিন হয়ে যায় বিশ্ববিদ্যালয় সর্বপ্রথম প্রতিষ্ঠিত এ হলটি।

সৌন্দর্য বৃদ্ধিকরণে হলের ভেতরে ও বাইরের দিকে সারি সারি আলোকসজ্জার বাতি ছিল। তবে সেগুলো এখন অকার্যকর। বাগানে বসার স্থানে সৌন্দর্য বর্ধনের বাতিগুলো অকেজো হয়ে পড়ে আছে দীর্ঘদিন ধরে। হলের চারপাশে পর্যাপ্ত আলোর ব্যবস্থা নেই বললেই চলে। কিছু ভালো লাইট থাকলেও তা অকেজো হয়ে পরে আছে দিনের পর দিন। আবার হল গেটের সামনে ছাউনিসহ বসার স্থান থাকলেও, সেখানেও নেই কোনো বাতির ব্যবস্থা।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, সাদ্দাম হোসেন হলের প্রভোস্ট অধ্যাপক ড. আশরাফুল আলম থাকাকালীন হলের সৌন্দর্য ও আলো বৃদ্ধিতে আলোকসজ্জার বাতিগুলো ও সোডিয়াম লাইট বসানো হয়েছিল। তবে করোনাকালীন সময়ে হল বন্ধের পর লাইটগুলো চুরি হয়ে যায়। তারপর থেকে আর কোন পরিবর্তন আনা হয়নি।

সরেজমিনে দেখা যায়, হলের সৌন্দর্য বর্ধন ও আলোর জন্য বাগান বসানো হয়েছেছিল বিভিন্ন রকমের বাতি। অবহেলায় সেগুলো নষ্ট হয়ে গেছে। তাছাড়াও হলের ভিতরের লাইটগুলো অধিকাংশ অকেজো। সন্ধ্যা ঘনিয়ে আসলেই পর্যাপ্ত আলোর অভাবে সাপের আতঙ্ক বিরাজ করে। কিছুদিন পূর্বে ডাইনিং থেকে খাদ্য দ্রব্য চুরির অভিযোগ আসে সেটাও পর্যাপ্ত আলোর অভাবে।

হলের আবাসিক শির্ক্ষাথীরা অসন্তোষ প্রকাশ করে বলেন, বাগানে পর্যাপ্ত আলো নেই। সন্ধ্যার পর সবগুলো লাইট জ্বলে না, আবার আলোও কম থাকে। দিনের বেলায় বাগানে সৌন্দর্য প্রকাশ পেলেও রাতে হয় ঘুটঘুটে অন্ধকার, কিছুদিন পরপর সাপ দেখতে পাওয়া যায় হলের বিভিন্ন প্রান্তে । তাছাড়া বেশ কিছু ওয়াশরুমে ও বেসিনগুলোতে আলোর স্বল্পতার কারণে ভোগান্তিতে পরতে হয় আমাদের।

আরেক আবাসিক শিক্ষার্থী আসিফুর রহমান বলেন, হলের চারপাশে আগাছায় ভরা সেগুলো পরিস্কার করা দরকার তাছাড়াও হলের মধ্যেও কিছু জায়গাতে ময়লার ভাগারে পরিণত এসব দেখেও যেন না দেখার অভিনয় হল পরিচ্ছন্ন কর্মকর্তাদের । হলে পর্যাপ্ত আলোর অভাবে বিষাক্ত পোকামাকর ও মশার উপদ্রব বেড়েছে। হলের মধ্যে ও চারপাশে পর্যাপ্ত লাইট লাগানোর ব্যবস্থা করা হোক।

হল প্রভোস্ট অধ্যাপক ড. আসাদুজ্জামান বলেন, কর্মকর্তাদের নিয়ে হলে লাইটগুলো লাগানোর ব্যবস্থা নিব। পুরাতন হল হওয়ার কারণে লাইট সহ হলের অনেক কিছুই এখন নষ্ট হয়ে আছে। খুব শিগ্রই এ বিষয়ে পদক্ষেপ গ্রহণ করব।

দেশেরকথা/বাংলাদেশ

এই বিভাগের আরো খবর

ফেসবুকে আমরা

এই সাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া কপি করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।কপিরাইট @২০২০-২০২৪ দৈনিক দেশেরকথা কর্তৃক সংরক্ষিত।
প্রযুক্তি সহায়তায় Shakil IT Park